• No products in the cart.

কিভাবে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করা যায় – ( ১০০% real উপায় )

মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় গুলো কি ? কিভাবে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করা যায় ? ইত্যাদি মোবাইলে টাকা ইনকাম করার উপায় গুলোর বিষয়ে আজকে আমরা এই আর্টিকেলে আলোচনা করতে চলেছি। ঘরে বসে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করার উপায় এমনিই প্রচুর রয়েছে যেগুলোর বিষয়ে আজকে আমরা আলোচনা করবো।

আপনি কি অনলাইন পার্ট-টাইম বা ফুল-টাইম টাকা ইনকাম করতে চান ?

যদি হে, তাহলে আপনার ওই Android mobile আপনাকে মাসে মিনিমাম ১০ হাজার থেকে ৩০ হাজার আয় করে দিতে পারবে।

হে, এটা একদম সত্যি।

আজ টেকনোলজি এতো ফাস্ট এবং অ্যাডভান্সড হতে চলেছে যে, এন্ড্রয়েড মোবাইলে টাকা ইনকাম করা এখন একটা ট্রেডিশন বা ফ্যাশন হয়ে উঠেছে।

মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম করার এমনিতে অনেক উপায় আছে।

কিন্তু আমি আপনাকে কেবল ওই ৫ টি সহজ উপায় গুলো বলবো যেগুলি আপনাকে সত্যি অনলাইনে টাকা আয় করার সুযোগ দিয়ে থাকবে।

আর্টিকেল শুরু করার আগে আমি আপনাকে একটা কথা ভালো করে বলেদিতে চাই।

Android মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করার যেগুলি অনলাইন উপায় আমি বলবো সেগুলি আজ অনেকেই ব্যবহার করে আনলিমিটেড ইনকাম করছেন।

আর সেটা আপনিও করতে পারবেন।

কিন্তু, একটা কথা অবশ্যই মনে রাখুন যে, কোনো কষ্ট আর কাম না করে জীবনে কিছুই পাওয়া যায়না।

আর, তার জন্যই আপনাকেও নিজের মোবাইল দিয়ে ভালো মানের টাকা কমানোর জন্য অল্প পরিশ্রম করতেই হবে।

বাকি এতটুকু জেনেরাখুন, এই স্মার্টফোন দিয়ে টাকা ইনকাম করার উপায় গুলি দিয়ে লোকেরা হাজার কেন লক্ষ লক্ষ টাকা প্রত্যেক মাসে আয় করছেন।

মোবাইলে টাকা ইনকাম করার উপায় । মোবাইল দিয়ে টাকা আয়

Blogging এবং website তৈরি করে,
YouTube channel,
Android earning apps,
OLX website,
Short-link website,
Facebook Group,
Ysense,
Instagram,
Online Survey,
Online games,
Sell photos online.

চলুন, এখন আমরা ওপরে বলা মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় গুলোর বিষয়ে কিছুটা জেনেনেই।

কিভাবে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করা যায় – (সহজ উপায়)

যা আমি ওপরে আপনাদের বললাম, যদি আপনার কাছে একটি এন্ড্রোইড স্মার্টফোন আছে,

তাহলে অবশই আপনি মোবাইলে কাজ করে অনলাইন পার্ট-টাইম এবং ফুল-টাইম টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

আর, তারজন্য জরুরি ১২টি উপায় আমি আপনাদের নিচে অতি সহজে বুঝিয়ে দিয়েছি।

১. ব্লগিং এবং ওয়েবসাইটের দ্বারা ইনকাম
আপনি কি জানেন, মোবাইল থেকে একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইট বানিয়ে অনলাইন আনলিমিটেড টাকা ইনকাম করতে পারবেন ?

যদি না, তাহলে ভালো করে বিষয়টা জেনে রাখুন।

আপনি অবশই Google এর blogger.com ওয়েবসাইটে গিয়ে একটি ফ্রি ব্লগ এবং ওয়েবসাইট বানিয়ে নিতে পারবেন।

আর তারপর, যখন আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইট ভিসিটর্স বা ট্রাফিক আসা আরম্ভ হবে তখন আপনি নিজের ব্লগ বা ওয়েবসাইট থেকে টাকা আয় করা শুরু করতে পারবেন।

আপনার হয়তো এই ভাব হচ্ছে যে, মোবাইল থেকে ব্লগ বানিয়ে income করা অনেক কঠিন বা ঝামেলার কথা। কিন্তু, তা একদম নই।

মোবাইল থেকে আপনার ব্লগ বানাতে মাত্র ১০ মিনিট লাগবে।

আর, তার পর নিজের ব্লগে ভালো ভালো আর্টিকেল লিখে সার্চ ইঞ্জিনের দ্বারা নিজের ব্লগে ভিসিটর্স বা ট্রাফিক আনতে পারবেন।

ব্লগে ভিসিটর্স আশা আরম্ভ হলে, Google AdSense এ নিজের ব্লগটি register করে টাকা আয় করা স্টার্ট করতে পারেন।

Google AdSense গুগলের একটি service যে আমাদের নিজের ব্লগ বা ওয়েবসাইটে text , link , video এবং image advertisements দেখিয়ে তার বিনিময়ে online income এর সুযোগ দেয়।

আজ, “ব্লগ এবং গুগল এডসেন্স” এই দুটো সার্ভিস ব্যবহার করে লোকেরা online এতো টাকা আয় করছেন যে আপ্নে ভাবতেও পারবেননা।

আর, আপনিও যদি ব্লগ এবং এডসেন্স এর দ্বারা income করতে চান তাহলে কোনো কম্পিউটার বা ল্যাপটপের দরকার আপনার নেই।

নিজের স্মার্টফোনেই একটি ব্লগ বানিয়ে তাতে আর্টিকেল লিখে Google AdSense এর মাধ্যমে ইনকাম করতে পারবেন।

২. YouTube channel বানিয়ে অনলাইন ইনকাম

ব্লগিং এর মতো মোবাইল থেকে অনলাইন টাকা কমানোর জন্য YouTube channel বানানোর আইডিয়া টি বেশ অনেকটাই লাভজনক।

আজ, অনেক লোকেরা ইউটুবে গিয়ে নিজের চ্যানেল বানিয়ে মাসে মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করছে।

ইউটুবে চ্যানেল বানানোর জন্য আপনার YouTube এর Website এ যেতেহবে।

YouTube.com এ গিয়ে আপনার Gmail একাউন্টের প্রয়োজন হবে।

কারণ, আমি আগেই বলেছি, “YouTube Google এর product ” আর তাই ইউটুবে লগইন করতে Gmail account ID আর password এর প্রয়োজন হবে।

নিজের Gmail account দিয়ে ইউটুবে লগইন করার পর আপনি ইউটুবে directly বা একটি আলাদা channel বানিয়ে তাতে video আপলোড করুন।

ইউটুবে চ্যানেলে ভিডিও upload করেই আপনি টাকা আয় করার সুযোগ পাবেন।

এইটা মনে রাখবেন, যা যা video নিজের YouTube চ্যানেলে upload করবেন সেটা যাতে নিজের বানানো অরিজিনাল ভিডিও হয়।

যদি অন্য কারো ভিডিও নিজের চ্যানেলে আপলোড করেন তাহলে সেটা copyright ভিডিও হিসাবে ধরা হবে।

আর তাই সেই অন্যর কপি করা ভিডিও থেকে ইনকাম করার কোনো option পাবেননা।

তাই, অনেক সহজে নিজের মোবাইল দিয়ে একটি YouTube channel তৈরি করে, মোবাইল দিয়েই ভিডিও তৈরি এবং এডিট করে টাকা আয় করতে পারবেন।

ইউটুবে কেমন ভিডিও আপলোড করতে পারবেন ?
নিজের ইউটুবে চ্যানেলে যেকোনো রকমের ভিডিওস আপলোড করতে পারেন।

যেমন, Tutorial videos, comedy videos, story, মোবাইল রিভিউ বা যেকোনো জিনিসের ওপরে।

অনেক তাড়াতাড়ি success পাওয়ার জন্য আপনি নিজের মোবাইল থেকেই টিউটোরিয়াল ভিডিওস বানিয়ে চ্যানেলে আপলোড করুন।

কিন্তু মনে রাখবেন, “যা বানাবেন নিজে বানাবেন” আর ভিডিওর কোনো অংশতে যাতে অন্য কোনো ভিডিওর কোনোরকম কপি করা পার্ট বা অংশ না থাকে সেটা মনে রাখবেন।

এরকম original নিজে বানানো video ইউটুবে আপলোড করতে থাকলে অনেক তাড়াতাড়ি টাকা আয় করা শুরু করতে পারবেন।

এখন আপনি ইউটিউবে চ্যানেল বানালেন এবং ভিডিও আপলোড ও করলেন।

কিন্তু, টাকাটা কিভাবে কমাবেন ? আপলোড করা ভিডিও থেকে টাকা কিভাবে পাওয়াযাবে ? সেটাইতো আপ্নে এখন ভাবছেন ? তাই না। .?

ইউটুবে থেকে টাকা কিভাবে আয় করবে ?

আসলে, যখন আপনি ভিডিও নিজের ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করেন,

তার পর আপনার ভিডিও ইউটুবের ওয়েবসাইটে আশা হাজার হাজার লোকেরা অনলাইন ভিউ করে বা দেখে।

আর তখন আপনার ভিডিও থেকে টাকা কমানোর সুযোগটা এসেপড়ে।

ইউটিউবে “monetization” বলে একটা অপসন রয়েছে।

এই monetization অপশন এর মাধ্যমে যখন apply করে অপশনটি enable করবেন (চালু করবেন) তখন Google AdSense এর তরফথেকে কিছু advertisements আপনার ভিডিওগুলিতে দেখানো হবে।

আর, লোকেরা আপনার ভিডিও দেখার আগে যখন ওই advertisement গুলি দেখবেন, তখন আপনি টাকা ইনকাম করবেন।

এটাই ইউটিউব থেকে অনলাইন ইনকামের উপায়।

যখন ৫০ টি ভিডিও আপলোড করে ফেলবেন আর আপনার প্রত্যেক ভিডিওতে ডেইলি ৩০ করে ভিউ হবে তখন ৫০*৩০= ১৫০০ টোটাল ভিডিও ভিউ আপনি ডেইলি পাবেন।

আর, ডেইলি যদি আপনার ভিডিও গুলি ১৫০০ বার লোকেরা দেখেন তাহলে কমেও ০.২ ডলার করে প্রতি ad view তে পেলেও ০.২*১৫০০= ৩০০ ডলার।

যদি এক ডলার = ৬০ টাকা হয় তাহলে ৩০০ ডলার *৬০= ১৮,০০০ টাকা।

আজ অনেকেই ইউটুবে থেকে এরথেকে অনেক বেশি টাকা প্রতিদিন কামাই করছেন।

আর এগুলো সব কেবল নিজের মোবাইল থেকেই করতে পারবেন যদি আপনার কাছে কম্পিউটার বা ল্যাপটপ নেই।

কিন্তু, এইটা মনে রাখবেন, এক দিনে কিছুই হয়না।

আপনার অনেক পরিশ্রম করতে হবে, মনদিয়ে এবং interest রেখে কাজ করতে হবে।

আর তখন গিয়ে আপনি এই YouTube business এ success হবেন।

৩. Android apps থেকে পয়সা কামান

হে আপনি ঠিক শুনেছেন, এখন মোবাইলে বিভিন্ন এন্ড্রয়েড অ্যাপ থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

কিন্তু, নিজের মোবাইল থেকে টাকা আয় করার এই মাদ্ধমে আপনার খুবেক্টা বেশি ইনকাম হবেনা।

যদি আপনি একজন student, housewife বা retired person তাহলে extra কিছু ইনকাম করার জন্য এই উপায় ব্যবহার করতে পারেন।

Google play store এ গিয়ে “earning apps”, “online income app” বা “free recharge app” বলে সার্চ করলেই অনেক এমন apps পেয়ে যাবেন যেগুলো আপনাকে বিভিন্ন কাজের জন্য real টাকা দিয়ে থাকে।

এমন টাকা কমানোর কিছু সেরা অ্যাপ কিছু হলো,

“Truebalance” , “MCent“, “Amulyam“, “Pocket Money“, “TaskBucks” ইত্যাদি আরো অনেক রয়েছে।

এই apps গুলো google play store থেকে ফ্রীতে download করে মোবাইল থেকে ইনকাম করতে পারবেন।

তবে, টাকা কমানোর এই apps গুলো আপনাকে এমনেই পয়সা দিয়ে থাকেনা।

App ডাউনলোড করার পর আপনার অনেক রকমের কাজ গুলো করতে হবে।

যেমন – apps downloading, app রেফার করা, video দেখা ইত্যাদি।

আর, এই কাজ গুলির বিনিময়ে আপনাকে কিছু টাকা app এর তরফথেকে দেওয়া হয়।

ইনকাম করা টাকা আপনি অনেক রকমেই তুলতে পারবেন।

যেমন – paytm cash হিসেবে, ফ্রি মোবাইল রিচার্জ, ফ্রি ডিশ টিভি রিচার্জ, bank account transfer ইত্যাদি মাধ্যমে।

৪. OLX এবং QUIKR এ পুরোনো জিনিস sell করুন

যদি আপনি মোবাইল থেকে extra income করার উপায় খুঁজছেন, তাহলে OLX এবং Quikr এর মতো ওয়েবসাইট আপনার হাহায্য করতে পারবে।

OLX বা Quikr আসলে এমন ওয়েবসাইট যেখানে পুরাণ যেকোনো জিনিস বা পণ্য বিক্রি করা যায়।

সেটা যেকোনো জিনিস হতে পারে যেমন, bike, মোবাইল, টিভি, Car, computer, ল্যাপটপ বা যেকোনো জিনিস।

আপনি এই দুটি ওয়েবসাইটে গিয়ে পুরোনো জিনিস বিক্রি করে টাকা আয় করতে পারবেন।

আপনার ঘরে যদি বিক্রি করার মতো পুরোনো জিনিস আছে তবে সেটা আপনি অবশই বিক্রি করতে পারবেন।

এছাড়া, যদি কোনো পুরোনো bike বা car বিক্ৰী করার দোকানের মালিকের সাথে আপনার চেনা পরিচিত থেকে থাকে,

তাহলে আপনি কম দামে তার থেকে জিনিস কিনে আবার বেশি দামে এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিক্রি করে টাকা ইনকাম করতে পারেন।

আর, এই সম্পূর্ণ কাজ আপনি নিজের মোবাইল থেকেই করতে পারবেন।

আপনি যা বিক্রি করতে চান, সেটার ফটো উঠিয়ে OLX বা QUIKR ওয়েবসাইট আপলোড করে জিনিস বা যা বিক্রি করতে চান তার বিষয়ে কিছুটা লিখে দাম সহ পোস্ট করে দিন।

বাস, তারপর কিছু সময়ের মধ্যে জিনিস টি কেনার উদ্দেশ্যে বিভিন্ন কাস্টোমাররা আপনার সাথে যোগাযোগ করতে শুরু করবেন।

এভাবেই মোবাইল থেকে পুরোনো জিনিস SELL করে আপনি পয়সা আয় করতে পারবেন।

৫. Short link website থেকে অনলাইন ইনকাম

আপনি কি short link ওয়েবসাইটের কথা জানেন ?

যদি না, তাহলে জেনেরাখুন, নিজের মোবাইল থেকে অনলাইন ইনকাম করার এইটা অনেক সোজা এবং ১০০% সত্যির উপায়।

আপনার বেশি কিছু করার দরকার নেই।

আপনার প্রথমে কিছু short link ওয়েবসাইটে গিয়ে account রেজিস্টার করতে হবে।

কিছু trusted এবং ভালো short link ওয়েবসাইটের নাম হলো – Shorte.st, adf.ly, AL.LY, Blv.me, Linkshrink.Net ইত্যাদি।

আপনি এগুলোর যেকোনো একটা বা প্রত্তেকটাতেই account বানাতে পারেন।

এখন, এই short link ওয়েবসাইট গুলির মাদ্ধমে টাকা কিভাবে আয় করবেন সেটা নিয়ে হয়তো আপনি ভাবছেন, তাই তো ?

আসলে, এই ওয়েবসাইট গুলোকে link shortener website বলা হয়।

এখানে, আপনাকে একটা box দেয়া হয় যেখানে যেকোনো ওয়েবসাইটের URL address link টি past করে তাকে ছোট (short) করতে পারেন।

ইন্টারনেট থেকে যেকোনো আর্টিকেল, ভিডিও, গান বা যেকোনো ওয়েবসাইটের URL address কপি করে তাকে এই URL shortener ওয়েবসাইট গুলির মাদ্ধমে ছোট করে দিতে পারেন।

যেমন, আপনি যদি আমার ব্লগের কোনো একটি আর্টিকেলের URL link ছোট করেন,

তাহলে সেটা দেখতে আসল URL থেকে সম্পূর্ণ আলাদা দেখাবে এবং অনেক ছোট হয়ে যাবে।

কিন্তু কথা হলো, এই URL shortener ওয়েবসাইট থেকে টাকা কিভাবে ইনকাম করা যাবে ? তাই তো ভাবছেন ?

আসলে, যখন কোনো ওয়েবসাইট বা ব্লগের বা ভিডিওর URL Address এই URL shortener ওয়েবসাইটে গিয়ে ছোট করবেন,

তখন লিংক এড্রেস টি ছোট হওয়ার সাথে সাথে ওখানে কিছু advertisement ও লাগিয়ে দেবা হয়।

আর এর ফলে, যখন কেউ আপনার short করা (ছোট করা) URL address এ ক্লিক করবেন তখন original ওয়েবসাইটে যাবার আগে কিছু advertisement দেখানো হবে।

এখন, এর ফলে আপনাকে প্রতি valid ad view এর ওপর টাকা দেবা হবে।

কোনো কোনো Link shortener ওয়েবসাইট আপনাকে ১০০০ ভিউ তে ৫ থেকে ১৫ ডলার দেবে বা কেউ কেউ ৫ থেকে ১০ ডলার।

কিন্তু ইনকাম আপনার ভালোই হবে।

আপনি সবটা নিজের মোবাইল দিয়েই করতে পারবেন।

আপনার খালি, ইন্টারেস্টিঙ আর ভালো ভালো ভিডিও, আর্টিকেল বা ওয়েবসাইট url address গুলো এই link shortener ওয়েবসাইট গিয়ে ছোট করতে হবে আর যতোটা সম্ভব Facebook group , WhatsApp group বা অন্য সোশ্যাল মিডিয়া গুলোতে শেয়ার করতে হবে।

তারপর, যতোটা ভিসিটর্স আপনার লিংকে ক্লিক করে আপনার দেওয়া URL address এ যাবে তারা advertisement দেখবে আর আপনি টাকা আয় করবেন।

৬. ফেসবুক গ্রুপ বানিয়ে ইনকাম

যদি আপনি ঘরে বসে মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম করার সেরা উপায় গুলো খুঁজছেন,

তাহলে একটি ফেসবুক গ্রুপ বানিয়েও ভালো টাকা আয় করতে পারবেন।

আজকাল একটি জনপ্রিয় এবং অধিক members থাকা Facebook group এর দ্বারা বিভিন্ন মাধ্যমে টাকা আয় করা সম্ভব।

এবং, যদি আপনার কাছে একটি এন্ড্রয়েড মোবাইল আছে তাহলে গ্রুপ বানানোর থেকে টাকা ইনকাম করা, সবটাই মোবাইল দিয়ে করতে পারবেন।

তবে, প্রথমে নিজের ফেসবুক গ্রুপ বানিয়ে সেটাকে জনপ্রিয় করার চেষ্টা করতে হবে।

এক বার আপনার গ্রুপে কমেও ১০ হাজার মেম্বার যোগ হয়ে গেলে তারপর আপনি বিভিন্ন উপায় গুলো ব্যবহার করে নিজের গ্রুপ থেকে অনলাইন ইনকাম করতে পারবেন।

৭. Ysense দিয়ে টাকা আয় করুন
মোবাইলে টাকা ইনকাম করার এটা অনেক সোজা এবং সহজ উপায়।

Ysense হলো একটি অনলাইন ওয়েবসাইট যেটা মূলত একটি paid survey website যেখানে বিভিন্ন সার্ভে গুলো করে টাকা ইনকাম করা যায়।

সরাসরি নিজের মোবাইল দিয়েই Ysense এর website এর মধ্যে গিয়ে একটি free account তৈরি করে নিতে পারবেন।

এবার, একাউন্ট তৈরি করার পর আপনারা নিজের dashboard দেখতে পাবেন এবং Surveys এর ভাগে আপনারা ভিন্ন paid survey গুলো দেখতে পাবেন।

এখন, এক এক করে survey গুলো join করুন এবং সেগুলোর উত্তর দিয়ে অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে থাকুন।

প্রত্যেকটি সার্ভে সফলভাবে সম্পূর্ণ করতে পারলে প্রায় ৩ থেকে ১০ ডলারের মধ্যে আপনার ইনকাম হয়ে যাবে।

৮. ইনস্টাগ্রাম থেকে টাকা ইনকাম করুন

যদি আপনার কাছে একটি এন্ড্রয়েড মোবাইল রয়েছে, তাহলে অবশই নিজের একটি Instagram account বানিয়ে সেটাকে জনপ্রিয় করে তারপর সেখান থেকে প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

আজকাল প্রত্যেকটি brand, services, product ইত্যাদি Instagram profile গুলোর দ্বারা প্রচার করা হয়।

এবং, ইনস্টাগ্রাম একাউন্ট এর মাধ্যমে পণ্যের প্রচার করার ফলে কোম্পানি গুলোর থেকে আপনি প্রচুর টাকা আদায় করতে পারবেন।

আজকাল এরকম প্রচুর social media influencer রয়েছেন যারা নিজের Instagram account এর মধ্যে বিভিন্ন কোম্পানি গুলোর product এবং services গুলোকে প্রচার করে প্রচুর টাকা অনলাইনে আয় করে থাকেন।

Instagram account তৈরি করার পর আপনাকে সেখানে মজার, আকর্ষণীয় এবং কাজের তথ্য, ছবি, ভিডিও ইত্যাদি নিয়মিত ভাবে পোস্ট করতে হবে।

চিন্তা করবেননা, প্রত্যেকটি কাজ আপনি নিজের মোবাইল থেকেই করতে পারবেন।

একবার আপনার Instagram profile এর মধ্যে প্রচুর followers যোগ হয়ে গেলে তারপর আপনি বিভিন্ন আলাদা আলাদা মাধ্যমে ইনকাম করতে পারবেন।

৯. অনলাইন সার্ভে ওয়েবসাইট

মোবাইল দিয়ে অনলাইনে সার্ভে করে টাকা আয় করার প্রচুর ওয়েবসাইট ইন্টারনেটে রয়েছে।

আপনারা নিজের মোবাইল দিয়েই সেই ওয়েবসাইট গুলোতে কাজ করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

অনেকেই আবার ভেবে থাকেন যে অনলাইনে সার্ভে গুলো সম্পূর্ণ করার কাজটি এতটা ভালোনা।

তবে, যদি আপনি ভালো ভালো survey website গুলোতে গিয়ে কাজ করেন, তাহলে ইনকাম অবশই হবে।

Swagbucks, InboxDollars এবং Branded Surveys, হলো বর্তমানের সব থেকে জনপ্রিয় survey website গুলোর মধ্যে কিছু।

Survey website গুলোতে গিয়ে আপনাকে কেবল signup করে নিজের একটি একাউন্ট তৈরি করতে হবে।

ব্যাস, এখন ওয়েবসাইটে থাকা সার্ভে গুলো নিজের মোবাইল থেকে সম্পূর্ণ করতে থাকুন এবং ইনকাম করতে থাকুন।

পেইড সার্ভে গুলোতে মূলত, বিভিন্ন company এবং products গুলোর ওপরে আপনার থেকে পরামর্শ এবং মতামত নেওয়া হয়।

১০. অনলাইন গেম ইনকাম

বর্তমান সময়ে মোবাইলে গেম খেলে টাকা ইনকাম করার প্রচুর apps-গুলো আপনারা পেয়ে যাবেন।

এই android mobile apps গুলোতে আপনি বিভিন্ন ধরণের গেম গুলো খেলতে পারবেন।

এবং, গেম খেলার বিপরীতে আপনাকে টাকাও দেওয়া হবে।

তবে মনে রাখবেন, এই ধরণের apps গুলো দিয়ে আপনি তেমন একটা অধিক অনলাইন ইনকাম করতে পারবেননা।

তবে, ছোটোখাটো পার্ট-টাইম ইনকাম করার জন্যে apps গুলো ব্যবহার করতে পারবেন।

এই টাকা ইনকাম করার অনলাইন গেম এপস গুলোর মধ্যে কিছু হলো,

MPL,
Money Bingo Clash,
Yatzy Dice: Win cash,
Dream 11,
WinZo app,
Hago

১১. অনলাইনে ছবি বিক্রি

আজকাল বেশিরভাগ মোবাইলেই ভালো মানের ক্যামেরা অবশই থেকে থাকে।

যদি আপনার smartphone এর মধ্যে high-quality images তুলার ক্ষমতা রয়েছে, তাহলে মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম করার এটাও একটি দারুন উপায়।

অনলাইনে ছবি বিক্রি করে টাকা আয় করার এরকম প্রচুর ওয়েবসাইট রয়েছে যেগুলোতে আপনি নিজের তোলা ছবি গুলো বিক্রি করতে পারবেন।

যেমন, Adobe Stock, bigstockphoto.com, shutterstock.com, এবং আরো অনেক।

এই ধরণের ওয়েবসাইট গুলোতে নিজের একটি account তৈরি করে নিতে হবে।

এর পর, আপনি নিজের মোবাইল দিয়ে high quality images গুলো তুলুন এবং ওয়েবসাইট গুলোতে আপলোড করুন।

আপনার ছবি গুলোকে যদি গ্রহণ করে নেওয়া হয়,

তাহলে যতবার আপনার ছবি গুলো ওয়েবসাইটের দ্বারা ব্যবহার করা হবে আপনাকে ততবার কিছু টাকা রয়্যালটি হিসেবে দিয়ে দেওয়া হবে।

FAQ,

মোবাইল দিয়ে কিভাবে টাকা ইনকাম করা যায় ?
অনলাইন ছবি বিক্রি, অনলাইনে গেম খেলে, একটি ইউটিউব চ্যানেল বানিয়ে, বিভিন্ন income apps গুলো ব্যবহার করে এবং অনলাইনে সার্ভে জমা দিয়ে আপনি নিজের মোবাইল দিয়ে সহজে টাকা আয় করতে পারবেন।

মোবাইল দিয়ে কত টাকা ইনকাম করা যাবে ?
মোবাইল দিয়ে কাজ করে কত টাকা ইনকাম করা যাবে সেটা সম্পূর্ণ আপনার ওপর। ওপরে বলা উপায় গুলোর মধ্যে এমন কিছু দারুন উপায় রয়েছে যেগুলোর দ্বারা মাসে ৫০০০ থেকে ১৫০০০ টাকা আরামে ইনকাম করতে পারবেন।

মোবাইলে টাকা ইনকাম করার সেরা অ্যাপস কোন গুলো ?
মোবাইলে ইনকাম করার অ্যাপস গুলোর মধ্যে সেরা অ্যাপস কিছু হলো, Google Opinion Rewards, Cashbuddy, Foapp, CashBaron, Cointiply এবং Karma App.

Final words on topic,
তো বনধুরা, আজ আমি আপনাদের ১১টি সহজ এবং ১০০% রিয়েল উপায় জানলাম যার দ্বারা অনলাইন নিজের মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করা যাবে।

এর মধ্যে এমন কিছু উপায় বলেছি যেগুলো আমি নিজে এতটা করে দেখিনাই জিন্টু অনেকের মুখেই শুনেছি যে তারা এগুলির মাদ্ধমে টাকা কামিয়েছে।

আর এমনও কিছু উপায়ও বলেছি যেমন, “Blogging” এবং “YouTube channel“, যার মাদ্ধমে প্রচুর এবং সীমাহীন income করতে পারবেন।

কিভাবে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করা যায় (How to earn money from mobile phone) এই বিষয়ে লিখা আর্টিকেলটি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে, তাহলে অবশই আর্টিকেলটি শেয়ার করবেন।

এছাড়া, আর্টিকেলের সাথে জড়িত কোনো ধরণের প্রশ্ন বা পরামর্শ থাকলে, নিচে কমেন্ট করে অবশই জানিয়ে দিবেন।

0 responses on "কিভাবে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করা যায় – ( ১০০% real উপায় )"

Leave a Message

Your email address will not be published. Required fields are marked *

top
Technical Bangla ©  All rights reserved.